আমাদের ওয়েবসাইট www.womeneye24.com আপডেটের কাজ চলছে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা দু:খিত
নারী সংগঠন

মহিলা পরিষদের অনলাইন সার্টিফিকেট কোর্সের উদ্বোধন

ওমেনআই ডেস্ক : বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ আয়োজিত ‘জেন্ডার, নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়ন’ বিষয়ক ১০ম ব্যাচের অনলাইন সার্টিফিকেট কোর্সের উদ্বোধন করা হয়েছে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণ, গবেষণা ও পাঠাগার উপ-পরিষদের উদ্যোগে এ কোর্সের আয়োজন করা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৪টায় কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম।

স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু। তিনি বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ জাতীয় ও বৈশ্বিক নারী আন্দোলনের অংশ। নারী আন্দোলনের জ্ঞান ছড়িয়ে দিতে ও এ সম্পর্কিত বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা অব্যাহত রাখতে এই কোর্স সম্পাদন করা হচ্ছে। পাশাপাশি, মাঠ পর্যায়ে নারী আন্দোলনের লব্ধ ও তাত্ত্বিক জ্ঞানের সমন্বয়ে এই কোর্স পরিচালিত হচ্ছে। এই পাঠক্রম নারী আন্দোলনের মাধ্যম সমতাপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি নির্মাণে সহায়তা করবে।

সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সীমা মোসলেম বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সমাজে প্রচলিত বৈষম্য দূর করে গণতান্ত্রিক, সমতাপূর্ণ সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে নানামুখী কাজ করে চলেছে। কোর্সটি পরিচালনার উদ্দেশ্য হলো সকলের মাঝে জেন্ডার সমতাপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করতে সমাজের বিভিন্ন পেশার মানুষকে একই প্ল্যাটফরমে নিয়ে আসা। যাতে কোর্সটির মাধ্যমে লব্ধ জ্ঞান জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রত্যেকে প্রয়োগ করতে পারেন।

পরবর্তীতে কোর্সের আওতায় পাঠদান পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা এবং সকল ক্ষেত্রে জেন্ডার সমতাপূর্ণ মানবসম্পদ গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ৫৮টি জেলার ২,৩৫০টি শাখার মাধ্যমে অগণিত কর্মী-সংগঠক নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে কাজ করছে। যখন সমাজে বৈষম্য থাকে তখন বৈষম্য নিরসনের জন্য আন্দোলন করতে হয়। কিন্তু লিঙ্গীভিত্তিক বৈষম্য সামাজিক-রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক জীবন পেরিয়ে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনেও প্রভাব ফেলে। নারীর সমতা প্রতিষ্ঠার জন্য সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বেইজিং ঘোষণাপত্র ও সিডও সনদের মধ্য দিয়ে নারীর অধিকার মানবাধিকার হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে। নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সামাজিক পুনঃনির্মাণের প্রাথমিক পদক্ষেপ এই কোর্স। সমাজের সকল ক্ষেত্রে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারলে সামাজিক পুনঃনির্মাণ সম্ভব হবে।

সামাজিক পুনঃনির্মাণের মধ্য দিয়ে এই কোর্স সার্থক হবে এবং শিক্ষার্থীরা কোর্স থেকে অর্জিত জ্ঞান নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে, সমাজে এবং পরিবারে প্রয়োগ করবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

রেকর্ডকৃত বক্তব্যে সংগঠনের সভাপতি আয়শা খানম বলেন, জীবনের সমগ্র ক্ষেত্রে নারীরা কীভাবে সমাজের প্রচলিত আইন, রীতিনীতি ও প্রথা দ্বারা কিভাবে বৈষম্যের শিকার হয় তা নারীবাদ বারবার ব্যাখ্যা দিয়েছে। এসকল বৈষম্য দূর করার লক্ষ্যে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে নারী আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ দৃষ্টি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বহুমাত্রিক পদ্ধতিতে শিক্ষা-দীক্ষা সহ প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা করা হয়ে থাকে, যা নারী আন্দোলনের একটি অংশ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে নারীবাদীসহ প্রগতিশীল সকলেই সমতা গড়ার লক্ষ্যে যেন নতুন করে চর্চা করছেন। এটিকে শক্তিশালী সমাজ গঠনের প্রত্রিয়া হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

অনলাইন সার্টিফিকেট কোর্সের আওতায় প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতি ও শনিবার (২ দিন) বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ক্লাস হবে।

কোর্স শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন ঢাকা ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ, টিআইবি, ইনস্টিটিউট ফর ইনক্লুসিভ ফাইন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ও বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষকগণ, আইন বিশেষজ্ঞ ও মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি ও উন্নয়ন সংস্থার কর্মকর্তা, আইনজীবী, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, চিকিৎসক, গবেষকবৃন্দ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ কোর্সে অংশগ্রহণ করবেন।

আগামী ২১ নভেম্বর পর্যন্ত অনলাইনে কোর্সটি চলবে। এই অনলাইন কোর্সে মোট ৪৪ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন।

অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় কমিটি ও ঢাকা মহানগর কমিটির নেতৃবৃন্দ, শিক্ষার্থী এবং সংগঠনের কর্মকর্তাসহ ৬২ জন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণ, গবেষণা ও পাঠাগার উপ-পরিষদ সম্পাদক রীনা আহমেদ।

মা/১৭/৯/১৮.৪২

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close