আমাদের ওয়েবসাইট www.womeneye24.com আপডেটের কাজ চলছে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা দু:খিত
আন্তর্জাতিক

জাতিসংঘের মহিলা কমিশনের ভোটে ভারতের কাছে হারল চীন

ওমেনআই ডেস্ক : লাদাখ সীমান্তে দুই দেশের সীমান্ত বিরোধ কয়েক দশক ধরে চলে এলেও কোনও সমাধানে পৌঁছাতে পারেনি বেইজিং-দিল্লি। গত জুনের সংঘাতের পর থেকে সামরিক ও কূটনৈতিক পর্যায়ে দফায় দফায় বৈঠক হলেও উত্তেজনা কমেনি; বরং সময়ে সময়ে উত্তেজনায় যুক্ত হয়েছে নতুন মাত্রা।

ভারত-চীন যুদ্ধ লাগবে কি লাগবে না; কে জিতবে কিংবা কে হারবে সে ভাবনা ভাবার সময় হয়নি এখনো। তবে আন্তর্জাতিক অন্য একটি মঞ্চে চীনকে হারিয়ে জয় পেয়েছে ভারত! এই জয়ে ভারত বেশ উচ্ছ্বসিতও।

ভোটে জিতে জাতিসংঘের নারী স্বাধীনতা ও ক্ষমতায়ন সংক্রান্ত কমিশনের সদস্য হয়েছে ভারত ও আফগানিস্তান। চীন সেখানে যোগ্যতা অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় ভোট পায়নি।

জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টি এস ত্রিমূর্তি গণমাধ্যমকে এই খবর জানিয়েছেন।

জাতিসংঘের ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কাউন্সিল (ইসিওএসওসি)-এর অধীনে গুরুত্বপূর্ণ শাখা ‘কমিশন অন স্টেটাস অব উইমেন’ (সিএসডব্লিউ)। নারীদের অধিকার, নারী ক্ষমতায়ন এবং লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ ইত্যাদি নিয়ে কাজ করে এই কমিশন।

জাতিসংঘের সম্মানজনক এই মহিলা কমিশনের সদস্য হওয়াকে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে ভারতের কূটনৈতিক মহল।

নিউইয়র্কে স্থানীয় সময় সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) কমিশনের নির্বাচন হয়। ভোটে মোট ব্যালট ছিল ৫৪। সব সদস্যই ভোট দিয়েছেন। কমিশনের সদস্য হওয়ার জন্য ন্যূনতম ভোট দরকার ছিল অর্ধেকের বেশি অর্থাৎ ২৮। গণনায় দেখা যায় সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছে আফগানিস্তান, ৩৯টি। একটি ভোট কম অর্থাৎ ৩৮ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে ভারত। চীনের বাক্সে পড়েছে ২৭টি ভোট।

জাতিসংঘের এই কমিশনের সদস্য হওয়া পর টি এস ত্রিমূর্তি টুইটারে লিখেছেন, ‘ভারত ইসিওএসওসি-র আসন জিতেছে। ভারত এখন সিএসডব্লিউ-এর নির্বাচিত সদস্য। লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ ও নারী ক্ষমতায়নের জন্য আমাদের লড়াইয়ের স্বীকৃতি এটা। সমর্থনের জন্য সদস্য দেশগুলিকে ধন্যবাদ।’

এই নির্বাচনে জয়ের পর ভারত ২০২১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরের জন্য কমিশনের সদস্য থাকবে। সূত্র : আনন্দবাজার

মা/১৫/৯/২০.৩৪

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close