আমাদের ওয়েবসাইট www.womeneye24.com আপডেটের কাজ চলছে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা দু:খিত
অন্যান্যস্লাইড

দেশে তৈরি ভ্যাকসিনের প্রথম পরীক্ষা নিজের শরীরেই করতে চান নাজনীন

ওমেনআই ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে পর্যুদস্ত গোটা দুনিয়া। এর থেকে মুক্তির জন্য একটি ভ্যাকসিনের আবিস্কার করতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের দেশ। এরই মধ্যে অনেকগুলো ভ্যাকসিন চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়ালে আছে। হয়তো থুক সময়েই মিলবে সুখবর।

বাংলাদেশেও পিছিয়ে নেই। দেশের গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানও বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে ভ্যাকসিনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের ভ্যাকসিন নিয়ে আশাবাদী।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, শেষ ধাপ পার হলেই জানা যাবে কতটা গ্রহণযোগ্য হবে দেশে উদ্ভাবিত গ্লোবের এই ভ্যাকসিন।

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি হয়ে গেলে প্রথমে নিজের শরীরে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করার কথা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা নাজনীন সুলতানা।

নাজনীন সুলতানার ছোট ভাই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাই ভাইরাসটির টিকা আবিস্কার প্রক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে যুক্ত থাকতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা নাজনীন সুলতানা আরও বলেন, ‘আমার ছোট ভাই চট্টগ্রাম মেডিকেলের ডাক্তার ছিলেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। আমরা নিজের প্রোডাক্ট ও দেশে নিজেদের প্রতিষ্ঠানে উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস প্রতিরোধী ভ্যাকসিন পরীক্ষামূলকভাবে নিজের শরীরে প্রথম প্রয়োগ করতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘করোনা ভ্যাকসিন তৈরিতে সারাবিশ্বই চেষ্টা করছে। কিন্তু এখনো কেউ আলোর মুখ দেখেনি। শেষটা ধাপটা পার হলেই জানা যাবে কতটা কার্যকর হবে দেশের এ ভ্যাকসিনটি।’

তিনি আরও বলেন, ‘গ্লোব বায়োটেক যে কাজটা করছে, সেটি খুবই ভালো কাজ। গ্লোব বায়োটেক কিছু সাধারণ মানুষ ও কয়েক হাজার ভলান্টিয়ারের ওপর এই টিকা প্রয়োগ করবে। এটার ফলাফল দেখে বোঝা যাবে এই টিকা কতটা কার্যকরী হবে।’

দেশে কোভিড-নাইন্টিন প্রতিরোধী টিকা উদ্ভাবনকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন তিনি।

মা/১৪/৯/১৫.১৯

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close