আমাদের ওয়েবসাইট www.womeneye24.com আপডেটের কাজ চলছে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা দু:খিত
সাহিত্য

কোনও একদিন

মহিউদ্দিন মাসুদ

কোনও একদিন-তো বলেছিলে,
রিকশার হুড তুলে ঘুরতে যাবে…

সেদিন বিকেলের আবরণ -তো ছিলো বিষাদময়
ভেতরটায় ছিলো দাউ দাউ দাবানল,

তোমার বাড়ির গেইটে দাঁড়িয়ে,
কল দিয়ে বলেছিলাম —-
নেমে এসো,
তুমি বিশ্বাস করোনি,
বেলকনির ঝুমকোলতার ফাঁকে অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়েছিলে…

সেদিন রিকশার হুড না উঠিয়ে
ফুলার রোডের দিকে যাচ্ছিলাম,
জিগ্যেস করেছিলে হুড উঠাবে না?

না…

প্রেমটা আজ,
খোলা আকাশের নিচেই হোক,
ভালোবাসার সীমানায় প্রাচীর দিয়ে লাভ কী?

এই যে ফুটপাত দিয়ে কতো মানুষই তো হাঁটছে,
মনে হয় তাদের জীবনে ভালোবাসার ছিটেফোঁটা স্পর্শ করেনি-এমন ।
এই যে বিকেলের রঙটা
আজ কেমন জানি কাঁদছে,
কই…
কেউ তো ভাবছে না?

দেখে নিও,
কোনও একদিন
এই শহরের
এই বিষন্ন বিকেলটাই বলে দিবে…
সেদিন আমরা ছাড়া তো
এই বিকেলটাকে
এতো আপন করে কেউ দেখেনি,
আমরা ছাড়া-তো আর কেউ প্রেমে পরেনি
হয়তো সেদিন…,

এই যে
হঠাৎ তোমার চেহারায়
গোধূলির আলোর নীড় খেলা করছে,
সেকেন্ডের মধ্যেই তোমার চোখের পাপড়ির উজ্জলতা এর আগে কখনোই ফুটে ওঠেনি ।

কোনও একদিন-তো
রিকশা থামিয়ে কার্জন হলের সামনে,
ফুটপাতে বসে থাকা ফুলওয়ালীর কাছে
বেলি’র মালা না পেয়ে,
শেষমেশ,
দুটো গোলাপের সাথে একটা রজনীগন্ধার স্টিক তোমার হাতে দিয়েছিলাম ।

মূহুর্তের মধ্যেই
তোমার ওষ্ঠের ছাপ আমার কপোলে,
কী যে মায়া…
আমাদের চোখে মুখে,
এসব খবর কে রাখে,
কে দেখে বলো?

অথচ
আজ পৃথিবীর সমস্ত প্রেম কোণঠাসা
আমাদের চোখের ইশারায় ,
এক সেকেন্ডে পাল্টে যাওয়া
ফুলার রোডের চারপাশটা
কী এক অদ্ভুত মোহে ছেয়ে গেছে…

কোনও একদিন-তো
ঝুম বৃষ্টিতে রিকশার হুড তুলে
রাজা মিয়া-র বিখ্যাত দুধ- চা পান করতে
ঘন্টার পর ঘন্টা কাটিয়ে দিয়েছিলে,

বৃষ্টির ছিটেফোঁটা তোমার গাল বেয়ে
ঝরে পরেছিল আমার বুকে…

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

Close
Back to top button
Close
Close