আন্তর্জাতিক

বিশ্বজুড়ে পতঙ্গপালের হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কোটি কোটি মানুষ

ওমেনআই ডেস্ক : বিশ্বজুড়ে ঘনিভুত হচ্ছে আরেক মহাসংকট। একইসঙ্গে বিশ্বের দুই প্রান্তেই দেখা গেছে পতঙ্গপালের উপদ্রব। সুদূর দক্ষিণ অ্যামেরিকা থেকে শুরু করে আফ্রিকা ও এখন এ প্রান্তে এশিয়া মহাদেশেও পতঙ্গপালের আক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। ইরান, পাকিস্তানের পর এবার ভারতেও পতঙ্গপালের আক্রমণ হয়েছে। গত শনিবার দেশটির রাজধানী নয়া দিলি­ থেকে মাত্র ১৮ কিলোমিটার দূরের শহর গুরুগ্রামে পতঙ্গপাল আক্রমণ করে। স্থানীয় প্রশাসন মানুষজনকে উচ্চ শব্দে গান ছেড়ে ও থালাবাসন দিয়ে শব্দ করে পতঙ্গপাল দূর করার পরামর্শ দিয়েছে। এটিই গত এক দশকে ভারতের ইতিহাসে পতঙ্গপালের সবথেকে ভয়াবহ হামলা। এ নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটছে দেশটির কৃষকদের।
তাদের আশঙ্কা, পতঙ্গপালের কারণে ফসল বোনার মৌসুমে তারা ক্ষতিগ্রস্থ হবে।
পৃথিবীর অপরপ্রান্তে থাকা আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলেও পতঙ্গপালের আক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। এ সপ্তাহে দেশদুটি সতর্কতা জারি করেছে পতঙ্গপাল নিয়ে। আর্জেন্টিনায় ৯ বর্গকিলোমিটার জুড়ে থাকা পতঙ্গপালের বিশাল ঝাক প্রবেশ করেছে। এটি আর্জেন্টিনা থেকে ব্রাজিল হয়ে উরুগুয়ের দিকে যাচ্ছে। এ নিয়ে জরুরি অবস্থা জারি করেছে ব্রাজিলের দুটি প্রদেশ। তবে আবহাওয়া ভালো থাকলে এটি ব্রাজিলে প্রবেশ নাও করতে পারে এমন আশাও রয়েছে সেখানে।
মে মাসের প্রথম দিকে আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলে প্রথম পতঙ্গপাল হানা দেয়। এটি গত ৭০ বছরের ইতিহাসে মহাদেশটির সবথেকে বড় পতঙ্গপালের হানা। কেনিয়া, সোমালিয়া ও ইথিওপিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে কোটি কোটি পতঙ্গপাল।
মরুভ’মির পতঙ্গপাল সবথেকে ভয়াবহ। এটি সবথেকে খারাপ অবস্থায় বিশ্বের ২০ শতাংশ এলাকা দখল করে নিতে পারে। এতে বিপন্ন হতে পারে বিশ্বের ১০ শতাংশ মানুষের জীবন। এক বর্গ মাইলের তিন ভাগের এক ভাগ আকারের একটি পতঙ্গপাল প্রতিদিন ৩৫ হাজার মানুষের খাবার খায়।
এদিকে পৃথিবীকে মোকাবেলা করতে হচ্ছে প্রকৃতির দেয়া আরেক মহামারিকে। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে পতঙ্গপালের উৎপাত সামলানো আরো কঠিন হয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের দেশগুলো এখন সীমান্ত বন্ধ করে আছে। ফলে বিস্তর কোনো অঞ্চলজুড়ে একইসঙ্গে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। প্রতিদিন এদের ঝাক ১৯৫ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে। ফলে কোনো এলাকায় এরা হানা দিলে দ্রুতই পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে থাকে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close